আমাদের সম্পর্কে

বঙ্গোপসাগর অঞ্চলে সমুদ্র সাক্ষরতা নেটওয়ার্ক

সমুদ্র-সাক্ষর নাগরিক-সমাজ গড়বার উদ্দেশ্যে ‘বঙ্গোপসাগর অঞ্চলে সমুদ্র সাক্ষরতা নেটওয়ার্ক’-এর লক্ষ্য হচ্ছে বঙ্গোপসাগরপারের সব দেশে এডুকেটর, এক্সপার্ট, ও কমুনিকেটর প্রস্তুত করে তোলা। সেই লক্ষ্যে জ্ঞানগত পারস্পরিক-সহযোগিতা ও সক্ষমতা-বাড়ানোর ব্যবস্থা করে দেয়ার কাজ শুরু করেছে এই নেটওয়ার্ক।


নেটওয়ার্কে যোগ দিন

বঙ্গোপসাগর অঞ্চলে কর্মরত সব শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান, অ-সরকারি সংস্থা, গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান এবং উন্নয়ন সহযোগীরা, যাদের সমুদ্র সাক্ষরতার প্রতি অঙ্গীকার রয়েছে, তাদের সবার জন্য এই নেটওয়ার্ক উন্মুক্ত। যোগ দিন। আমাদের ইমেইল opinion at bayofbengalliteracy dot net ঠিকানায় বিস্তারিত আগ্রহ লিখুন।


 

নেটওয়ার্ক সদস্য

বর্তমানে নেটওয়ার্কের সদস্য-সংস্থাগুলো হচ্ছে:

  • Aquatic Bioresource Lab, Sher-e-Bangla Agricultural University
  • AMR Solutions
  • Bangladesh Youth Environmental Initiative BYEI
  • Biodiversity and Nature Conservation Association, Myanmar
  • Center for Critical and Qualitative Studies, University of Liberal Arts
  • EarthLanka, Sri Lanka
  • Global Youth Biodiversity Network GYBN
  • Riverine People
  • Radio Naf
  • Voices for Interactive Choice and Empowerment VOICE

প্রতিষ্ঠার পর থেকে এযাবত সব কাজকর্ম নেটওয়ার্ক সদস্য ও দাতাদের ইন-কাইন্ড সহযোগিতার ভিত্তিতে হচ্ছে। কারোর থেকে সরাসরি কোনো অর্থ সহযোগিতা গ্রহণ করে না এই নেটওয়ার্ক। যেকোনো প্রকল্প/উদ্যোগের জন্য নেটওয়ার্কে এক বা একাধিক সদস্য সংস্থা অর্থ সংগ্রহ করে এবং নিজেরা স্বাধীনভাবে নিজেদের ব্যবস্থাপনায় প্রকল্প/উদ্যোগ ব্যবস্থাপনা করে। এই সমস্ত কাজকর্মের জন্য শলা-পরামর্শ করা, পরস্পরের সক্ষমতা-সামর্থ্য ভাগাভাগি করা এবং লব্ধ অভিজ্ঞতা শেয়ার করার যৌথ প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করে এই নেটওয়ার্কটি।


আন্তর্জাতিক সহযোগিতা

ইজেএনের বে অব বেঙ্গল অর্গানাইজেশনাল গ্রান্টের সহযোগিতায় ভয়েস পরিচালিত একটি প্রকল্পের অন্যতম ফলাফল হিসেবে নেটওয়ার্কটি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ শুরু হয়।

শুরু থেকেই আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল মেরিন এডুকেরটস অ্যাসোসিয়েশনের (এনএমইএ) সঙ্গে আমাদের জ্ঞানগত-সহযোগিতার বন্দোবস্ত রয়েছে। বে অব বেঙ্গল স্টুয়ার্ডশিপ প্রকল্পের অংশ হিসেবে জুলাই ২০১৮ থেকে জুন ২০২০ মেয়াদে এনএমইএ এই অঞ্চলে ‘বঙ্গোপসাগর সাক্ষরতার মৌলিক ধারণা, অবশ্য-দরকারি নীতি, ও রূপরেখা তৈরিতে’ সব ধরণের সহযোগিতা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

 


 

দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিনিধিবর্গ:

  • Din M. Sumon Rahman, Ph.D. (Focal Point at ULAB)
  • Kazi Ahsan Habib Ph.D. (Focal Point at SAU)
  • Md Kutub Uddin (Program Lead, on behalf of VOICE)
  • Pyaephyo Aung (Focal Point at BANCA)
  • Shamir Shehab (Focal Point at BYEI)
  • Sheikh Rokon (Focal Point at Riverine People)
  • Sudarsha De Silva (Focal Point at Earth Lanka)
  • Swetha Stotrabhashyam (Focal Point at GYBN)
  • S M Rezaul Karim (Focal Point at AMR Solutions)

 


সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

২০১৭: আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্র সরকারের প্রদত্ত একটি ফেলোশিপের আওতায় দেশটির ন্যাশনাল ওশিয়ানিক অ্যান্ড অ্যাটমস্ফরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (নোয়া) দি ন্যাশনাল সি গ্রান্ট কলেজ প্রোগ্রামে অভিজ্ঞতা অর্জনে যান বাংলাদেশি কনসারভেশনিস্ট ও লেখক মো. কুতুব উদ্দিন। ওই ফেলোশিপের আওতায় তিনি ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়া’য় অবস্থিত জর্জিয়া সি গ্রান্ট ও মেরিন এক্সটেনসন সার্ভিসে স্কলার-ইন-রেসিডেন্স হিসেবে কাজ করেন। এই সময় তিনি তার মেন্টর এবং জর্জিয়া সি গ্রান্টের অ্যাসোসিয়েট ডিরেক্টর ড. মোনা বেল-এর সঙ্গে যৌথভাবে ‘বে অব বেঙ্গল স্টুয়ার্ডশিপ’ নামে একটি প্রকল্প ডেভেলপ করেন, যেই প্রকল্পে প্রথম কম্পোনেন্ট হচ্ছে বঙ্গোপসাগর অঞ্চলে সমুদ্র সাক্ষরতার প্রসার।

২০১৮: বে অব বেঙ্গল স্টুয়ার্ডশিপ প্রকল্পের স্বেচ্ছাসেবী ফ্যাসিলিটেটররা ঢাকায় মেরিন কনসারভেশন ও ওশেন লিটারাসিসহ নানা বিষয়ে কয়েকটি কর্মশালা করেন। ওইসব কর্মশালায় অনলাইনে ইনডিয়া, শ্রিলঙ্কা, ও আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্র থেকে কনসারভেশনিস্টরা যোগ দেন। আমেরিকার যুক্তরাষ্ট্রের মেরিন এডুকেটরদের সংগঠন ‘ন্যাশনাল মেরিন এডুকেটরস অ্যাসোসিয়েশন (এনএমইএ)’ জুলাই ২০১৮ থেকে জুন ২০২০ মেয়াদে বে অব বেঙ্গল স্টুয়ার্ডশিপ প্রকল্পটির অংশ হিসেবে এই অঞ্চলের পাঁচটি দেশে সমুদ্র সাক্ষরতার প্রসারে পরামর্শসহ সার্বিক সহযোগিতা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়।

২০১৯: ইজেএনের বে অব বেঙ্গল অর্গানাইজেশনাল গ্রান্টের সহযোগিতায় ভয়েস পরিচালিত একটি প্রকল্পের থেকে ‘বঙ্গোপসাগর সাক্ষরতার অবশ্য দরকারি নীতি ও মৌলিক ধারণা’ নির্দেশিকা প্রকাশের উদ্যোগ। পরে  জাতীয় স্তরের বেশ কয়েকটি কর্মশালা, অনলাইন মাধ্যমে শলা-পরামর্শ, এবং দুটো পরামর্শসভা শেষে চলতি বছরের জুনে সহযোগী-সংস্থাগুলো সিদ্ধান্ত নেয় ‘বে অব বেঙ্গল ওশেন লিটারাসি নেটওয়ার্ক’ নামে একটি প্লাটফর্ম প্রতিষ্ঠা করবার জন্য। এই বছরে একই সময়ে বে অব বেঙ্গল স্টুয়ার্ডশিপ প্রকল্পের আহ্বানে সমবেত এক্সপার্ট ও প্রাকটিশনাররা বঙ্গোপসাগর সাক্ষরতার নির্দেশিকা  প্রণয়ণের উদ্যোগেও (বিস্তারিত এই লিংকে) অবদান রাখেন।

 

হালনাগাদ: জুলাই, ২০১৯

Back to Top